Tiger is more valuable rather than diamond

The Indian government has recently shelved granting permission to a global mining company to open a $3 billion diamond mine in Madhya Pradesh state, saying that the plan endangers a rich forest area which happens to be a tiger reserve.

There are 34.2 million carats of diamond, valued at least 20,520 crore rupees, lying under the earth in the area in the central Indian state. If the mining of the diamond was allowed, from the Royalty and taxes India could earn up to 2,260 crore rupees.

In sharp contrast, around the same time Indian government is making an investment in a joint venture with Bangladesh to build a coal-fired power plant in Rampal, near the Sundarbans. For the project Bangladesh is taking a loan of 160 crore dollars from India’s EXIM Bank. Bangladesh is to hold 50% of the plant’s share. But, the burden of the entire amount of the loan will be borne by Bangladesh.

In Bangladesh there have been massive protests against the establishment of the power plant project which poses a grave threat for the Sundarbans. But, neither Bangladesh nor India has bothered to pay heed to those protests and all work to set up the plant has been going on at normal pace.

India stands in support of nature and environment inside its own territory. But, in Bangladesh it has taken a reverse stand by supporting a project which directly threatens life and nature of the showcase forest of the Sundarbans. This stand by India is disgraceful for the country as well as its people.

NB. Because of a figure-related error in an Indian Express report my original post carried a wrong figure. It has been corrected now.

ভারতে সরকার সম্প্রতি মধ্য প্রদেশে ৩ বিলিয়ন ডলারের একটি হীরক খনি প্রকল্পের কাজ স্থগিত করেছে। কারণ, এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে একটি ব্যাঘ্রপ্রকল্পে কয়েক লাখ গাছ কাটা যাওয়ার কারণে বাঘদের চলাচল বিঘ্নিত হবে।

এই হীরক খনিতে ৩৪.২ মিলিয়ন ক্যারাট হীরার মজুত আছে। উত্তোলন করলে যার মুল্য হবে ২০,৫২০ কোটি রূপি। আর ওই হীরে উত্তোলনের জন্য ভারত শুধু রয়্যালটি ও ট্যাক্স বাবদ ২,২৬০ কোটি রূপি আয় করতে পারে।

ভারত সরকার একই সময়ে বাংলাদেশের সুন্দরবনের কাছে রামপালে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে অসম চুক্তিতে যৌথ বিনিয়োগ করছে। এ জন্য ভারতের এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট (এক্সিম) ব্যাংক থেকে ১৬০ কোটি ডলার ঋণ নিতে হচ্ছে। এ বিদ্যুৎকেন্দ্রের ৫০ শতাংশ করে মালিকানা দুই দেশের হলেও ঋণের পুরোটা দায়ভার থাকবে বাংলাদেশের ওপর।

এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে বাংলাদেশে প্রবল প্রতিবাদ হচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার বা ভারত জনমতের তোয়াক্কা না করেই প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিচ্ছে। ভারত সরকার নিজের দেশে প্রাণ ও পরিবেশের পক্ষে দাঁড়ালেও বাংলাদেশে প্রাণ ও প্রকৃতি বিরোধী প্রকল্পে মদদ দিচ্ছে। এটা ভারতীয় জনগনের জন্যও লজ্জার।

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter