A monkey in the shape of a human!

He calls himself one who is enlightened with the spirit of the Liberation War. He loves Rabindranath Tagore. He also introduces himself as secular, liberal and educated. However, Abu Sayeed Firoz is a monkey in the shape of a human.

He abuses me on my Facebook wall apart from using filthy sexist language involving my wife in my inbox. He is a racist and uses a vulgar term to identify my religious identity.

This is the genuine Facebook ID of a person who happens to be a high ranking official with Bangladesh Atomic Energy Commission (BAEC). Recently he led a BAEC delegation to China. On his Facebook wall, he flaunts that he is secular and a fine Rabindrasangit singer.

Outside Bangladesh, few know that the ruling party of Awami League is an enemy to a liberal and developed Bangladesh. In the robes of liberalism and secularism, they are communal wolves.

It is the activists and supporters of Awami League who vandalise the Hindu idols, force the minority Hindus to leave the country and launch violent attacks on them. Strangely, they blame the Islamic and Islamist groups for all religiously motivated attacks on the Hindus. In all communal attacks in which Hindus and Buddhists were targeted, local Awami League leaders were found involved. I had written several Facebook posts on this issue in the past.

Awami League uses some minority community leaders who help the party hide its religious or communal nature from the West. There are some Awami League-supported militant so-called atheists who blame others for the communal acts of the ruling party.

They operate thousands of fake Facebook IDs. DGFI directly controls the online gang that uses fake IDs to post racist, communal and incendiary contents in the comment sections of the online portals. The online activities of the gang aim to falsely show that Bangladesh is teeming with people with fanatic and militant beliefs.

Those liberals, including me, who try to expose such fascist and communal activities of Awami League, are identified as militants and Islamists by the supporters of the ruling party. They call me an Islamist although I am not even a Muslim.

Yet, I keep documenting the nefarious activities of Awami League with the hope that in future at least some people will read them. And, they will get to know, how in our struggle to restore democracy in the country we have been caught in a David and Goliath battle.

Click here to read the original Facebook post

এই হচ্ছে চেতনাপন্থী, রবীন্দ্র অনুরাগী,ফ্যাসিবাদী, তথাকথিত সেক্যুলার লিবারেল শিক্ষিত হনুমানদের ভাষা ও চেহারা।

আবু সঈদ ফিরোজ আমার ওয়ালে আমাকে মৌলবাদী বলে গালি দেয় আর ইনবক্সে এসে আমার স্ত্রীকে নিয়ে কুৎসিত সেক্সিস্ট ভাষায় গালাগাল করে। শুধু তাই নয় ধর্মীয় পরিচয় নিয়ে ঘৃণাসূচক শব্দ উচ্চারণ করে।

এটা কোন ফেইক আইডি নয়। এই আইডি বাংলাদেশ এটোমিক এনার্জি কমিশনের একজন উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তার। সম্প্রতি চিনে সফরে যাওয়া বাংলাদেশ অ্যাটমিক এনার্জি কমিশনের প্রতিনিধি দলের নেতা ছিলো সে। সে নিজেই তার ওয়ালে শেয়ার করেছে তার গলায় গাওয়া রবীন্দ্রসঙ্গীত আর ধর্ম নিরপেক্ষতার কথা।

দেশের বাইরে অনেকে জানেনা বা বুঝতে পারেনা যে এই আওয়ামী লীগ সরকারই আসলে লিবারেল অগ্রসর বাংলাদেশের শত্রু। তারা লিবারেলিজম আর সেক্যুলারিজমের ছাল গায়ে দেয়া ধর্ম ব্যবসায়ী নেকড়ে।

তাদের দলের লোকেরাই হিন্দুদের প্রতিমা ভাঙ্গে, হিন্দুদের সম্পত্তি দখল করে, হিন্দুদের দেশছাড়া করে, হিন্দুদের উপরে সাম্প্রদায়িক হামলা করে আর দোষ দেয় ইসলামপন্থীদের। বাংলাদেশে হিন্দু এবং বৌদ্ধদের উপরে যতগুলো সাম্প্রদায়িক হামলা হয়েছে সবগুলোর সাথেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জড়িত ছিলো। আমি বিভিন্ন সময়ে আমার ফেসবুক পোস্ট ও ব্লগে হিন্দু ও বৌদ্ধদের উপর আক্রমণে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ দিয়েছি।

আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, এদের দলে সুবিধাপ্রাপ্ত কিছু সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোক আছে যারা পশ্চিমকে আওয়ামী লীগের সাম্প্রদায়িক চরিত্র নিয়ে বিভ্রান্ত করে। আওয়ামী লীগের সুবিধাপ্রাপ্ত কিছু মিলিট্যান্ট নাস্তিক আছে তারাও আওয়ামী লীগের সাম্প্রদায়িক আচরণকে অন্যের ঘাড়ে চাপায়।

এদের হাজার হাজার ফেইক আইডি আছে। বাংলাদেশের ডিজিএফআইয়ের মিলিটারি ইন্টেলিজেন্সের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে এইসব আইডি দিয়ে সাম্প্রদায়িক ও উগ্র মন্তব্য দিয়ে অনলাইন পত্রিকাগুলোর কমেন্ট সেকশন ভরিয়ে দেয়া হয় এমনভাবে যেন বাংলাদেশে উগ্র ও জঙ্গিবাদী মতবাদের অসংখ্যা মানুষ আছে এটা প্রতীয়মান করা যায়।

আর আমাদের মতো লিবারেলদেরকে যারা আওয়ামী লীগের এই ফ্যাসিস্ট সাম্প্রদায়িক আচরণ তুলে ধরি তাদেরকেই আওয়ামী সমর্থকেরা জঙ্গী, ইসলামপন্থী ট্যাগ দেয়। আমি নিজে মুসলমান না হবার পরেও আশ্চর্যজনকভাবে এরা আমাকে ইসলামপন্থী বলে গালি দেয়।

তারপরেও এসব প্রমাণ লিখে যাই। অন্তত কারো চোখে যদি এসব লেখা ও প্রমাণ পড়ে ভবিষ্যতে তাহলে তারা বুঝবেন আমরা দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার চেষ্টাতে কী অসম একটা লড়াইয়ে যুক্ত ছিলাম। আমরা যা নই আমাদেরকে তাই বলে এই ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ নির্মূল করতে চেয়েছিলো।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter