Ballot boxes were stuffed at night before the general election, CEC virtually admits

Ballot boxes were stuffed at night before the general election, CEC virtually admits
Pinaki Bhattacharya

The chief election commissioner of Bangladesh has finally admitted that ballot boxes are stuffed in Bangladesh at night a day before the day of polling.

The CEC made this statement at a workshop for the trainers of the election commission officers in Dhaka’s Agargaon today (Friday).

The CEC said: “When a malpractice takes place in the society we take all measures to halt its recurrence. Now we will start using EVMs. None will get any chance to (illegally) stuff the ballot boxes the previous night.”

Two days ago, Brig Gen (Retd) Shahadat Hossain Chowdhury, an election commissioner, had said that the election commission would take all steps to curb all manipulations during future elections.

“We will not tolerate malpractices like illegal stuffing of ballot boxes during the previous night. We will also not allow any illegal activity on the day of polling and during the counting of votes,” he said.

Mass stuffing of ballot boxes took place in Bangladesh for the first time on December 29 night, a day before the December 30 general election. We had never heard this allegation of ballot stuffing in the past in the country. Transparency International found in an investigation that this allegation of ballot stuffing was true.

Now two election commissioners, including the CEC, have indirectly admitted that stuffing of the ballot boxes took place during the December 30 general election. After a BBC video of ballot boxes stuffed hours before December 30 polling surfaced the government said that it was a “stray case” and it did not reflect a malpractice at wider level. But, the Transparency International investigation found that such malpractice took place in as many as 94% voting centres during the last general election.

Several international media reports hinted of ballot stuffing and other types of manipulations during the December 30 general election. The international community gave a call for an independent inquiry into the allegations following the general election. But, the government of Bangladesh or the election commission has not responded saying that it would facilitate such an independent inquiry involving international experts.

Why is the government afraid to organise or facilitate an international inquiry if it is certain that stuffing of the ballot boxes was a rare incident involving only one voting centre?

Click here to read the original Facebook post

বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার অবশেষে স্বীকার করে নিলেন গত জাতীয় নির্বাচনে আগের রাতে জালিয়াতি করে ব্যালট বাক্স ভরা হয়।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ (টিওটি) কর্মশালায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, “সমাজের মধ্যে একটার পর একটা অনিয়ম অনুপ্রবেশ করে, আবার সেটি প্রতিহত করতে একটা পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয়। এখন ইভিএম ব্যবহার শুরু করে দেবো, তাহলে সেখানে আর রাতে বাক্স ভর্তি করার সুযোগ থাকবে না।”

দুদিন আগে নির্বাচন কমিশনার (ইসি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী বলেছেন, “নির্বাচনের আগের রাতে ভোটবাক্সে ব্যালট ভরে দেওয়া কিংবা ভোটের দিন ও ভোটের পর ভোট গণনার সময় কোনোরকম অনিয়ম মেনে নেওয়া হবে না।”

আগের রাতের ভোট প্রথমবারের মতো হয় গত ৩০ ডিসেম্বরের ভোটের ক্ষেত্রে। এর আগে কখনো আগের রাতে ভোট বাক্স পূরণের অভিযোগ বাংলাদেশে আসেনি। এই অভিযোগ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশন্যালের অনুসন্ধানে প্রমাণিতও হয়।

“নির্বাচনের আগের রাতে ভোট দিতে দেয়া হবেনা” এই কথাটা একজন নির্বাচন কমিশনার প্রকাশ্যে গণস্থানে বলে প্রকারান্তরে স্বীকার করে নিলেন, গত ৩০ ডিসেম্বরের আগের রাতে ভোটবাক্সে ব্যালট ভরে দেয়া হয়েছিলো। সরকারের তরফ থেকে বলা হয় যে বিবিসির ক্যামেরায় ধরা পড়া ভোটের আগেই ভরা ব্যালট বক্সের ভিডিওটা একটা বিচ্ছিন্ন কেন্দ্রের ঘটনা, এটা সারা দেশের ভোটের বেনিযমের চিত্র নয়। তবে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশন্যালের তদন্তে দেখা গেছে যে ৯৪% ভোট কেন্দ্রেই এমন ভোট জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে।

আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে বাংলাদেশের এই বিশাল ভোট জালিয়াতির অভিযোগ স্পষ্টভাবে এসেছিলো। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই রাতের ভোটের বিষয়ে নিরপেক্ষ তদন্তের আহবান জানালেও বাংলাদেশ সরকার বা নির্বাচন কমিশন এই ক্ষেত্রে কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি। এমনকি বলেওনি যে তারা এইরকম একটি আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের নিয়ে তদন্তে সহযোগিতা করবে।

সরকার যদি মনে করে দেশের ৪২ হাজার ভোট কেন্দ্রে মাত্র একটি ভোট কেন্দ্রেই রাতের বেলা ব্যালট বাক্স ভরা হয়েছিলো, তাহলে নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তদন্ত করাতে তাদের এতো ভয় কেন?

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন
Print Friendly, PDF & Email
  • 251
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    251
    Shares

Leave a Comment