Bangladeshi diplomat makes shameless attempts to defend government on Al Jazeera show

Bangladeshi diplomat makes shameless attempts to defend government on Al Jazeera show
Pinaki Bhattacharya

While defending the government of Bangladesh in the “Head to Head” show of Al Jazeera, Bangladeshi diplomat Saida Muna Tasneem, said that Bangladeshi Swedish journalist Tasneem Khali had not left Bangladesh during the rule of Sheikh Hasina. When Mehdi Hasan, anchor of the show, asked Muna Tasneem, why Khalil had been forced to leave Bangladesh, she said: “I have no idea”.

Is it really that pertinent a topic for discussion when Khalil left Bangladesh? Was Khalil present at the show to discuss his personal case? He was there as a Bangladesh expert. He never claimed that he left Bangladesh during the regime of Awami League. Why did Muna Tasneem need to point out that Khalil had not been forced to leave Bangladesh during the rule of Sheikh Hasina?

Khalil was detained by a top intelligence agency in Bangladesh in May 2007, when the 1/11 government was in power. After being released from their torture chamber he spent about a month in hiding along with his family before moving to Sweden in June. The travails of Khalil were documented by the Human Rights Watch (HRW) in 2008. He also wrote an Opinion piece for the New York Times on his experience then titled “Surviving torture in Bangladesh”.

Bangladeshi diplomat Farooq Sobhan met HRW Asia director Brad Adams to discuss the case of Khalil. That meeting was organised by Muna Tasneem. Now she is saying that she does not have any idea why Khalil had to leave his country. I wonder how with such bad memory she is functioning as a diplomat in the Western countries.

Several journalists were forced to flee Bangladesh during the rule of Awami League. Oliullah Noman, who exposed the Skype Scam, Mahmudur Rahman had to flee Bangladesh during Sheikh Hasina’s rule.

Click here to read the original Facebook post

গত সপ্তাহে আল জাজিরার ‘হেড টু হেড’ শোতে সাইদা মুনা তাসনিম সরকারের সাফাই গাইতে গিয়ে বলেন, তাসনিম খলিল তো এই সরকারের আমলে দেশ ছাড়েন নাই।যখন অ্যাঙ্কর মেহদি হাসান মুনা তাসনিমকে প্রশ্ন করেন কেন খলিলকে দেশ ছাড়তে হয়েছে, তখন মুনা তাসনিম বলেন, ‘আই হ্যাভ নো আইডিয়া’।মানে, এ ব্যাপারে আমার কোন ধারণাই নাই।

আসেন আমরা বাংলাদেশের তথাকথিত এই দক্ষ ডিপ্লোম্যাটের আলাপটা আবারো পর্যালোচনা করি।

খলিল কবে বাংলাদেশ ছেড়েছে সেটা কি ঐ আলাপে প্রাসঙ্গিক? খলিল কি সেখানে নিজের কেইস আলোচনা করতে গেছে? নাকি বাংলাদেশের বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হিসাবে মতামত দিতে গেছে? সে কি কোথাও বলেছে যে, সে আওয়ামী লীগের আমলে দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছে? তাহলে “কার আমলে” সে দেশ ছেড়েছে এই প্রসঙ্গ মুনা তাসনিম আনে কেন?

তাসনিম খলিলকে ১/১১ সরকারের আমলে ২০০৭-এর মে মাসে দেশের বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থা, যার নাম আমরা সবাই জানি, (নেটে সার্চ দিলেই পাওয়া যাবে) তারা আটক করে। ওদের টর্চার চেম্বার থেকে ছাড়া পাওয়ার পরে প্রায় এক মাস সে তার পরিবারসহ আত্মগোপনে ছিলো। একই বছর জুন মাসে সে সুইডেন যায়। এই পুরা ঘটনাটার পাবলিক রেকর্ড আছে। ২০০৮-এ হিউম্যান রাইটস ওয়াচ থেকে খলিলের জবানবন্দী পাবলিশ হয়েছে, সে নিউ ইয়র্ক টাইমস-এ এইটা নিয়ে Surviving torture in Bangladesh শিরোনামে কলামও লিখেছে।

সেই সময় খলিলের কেইস নিয়ে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়া ডিরেক্টর ব্র্যাড অ্যাডামসের মিটিং হয় ফারুক সোবহানের সাথে। সেই মিটিংটা অর্গানাইজ করে মুনা তাসনিম। আর আজকে সে বলে, “আই হ্যাভ নো আইডিয়া!” এতো দুর্বল স্মৃতি শক্তি নিয়ে পশ্চিমা দেশে রাষ্ট্রদদূতের চাকরি করা যায় সেটা জানা ছিলোনা?

আওয়ামী লীগের আমলে কি সাংবাদিকরা দেশছাড়া হয়েছে। স্কাইপ কেলেঙ্কারি ফাঁস করা ওলিউল্লাহ নোমান, মাহমুদুর রহমানকে দেশ ছাড়তে হয়েছে।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন
Print Friendly, PDF & Email
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Comment