সোনার বাঙলার রূপালী কথা

Books

বাঙলা আর বাঙলীর ইতিহাস বিচিত্র আর বহুবর্ণ। এই জাতির গড়ে ওঠার নানা পর্যায়ে আছে উত্থান-পতন, গৌরব-গর্ব আর লাঞ্ছনা-অপমানের নানা ঘটনা। আজকের বাঙালীর দুর্দশার জন্য তার উপর চলা অবিচার আর অত্যাচারের একটা ভূমিকা আছে। কিশোর-তরুণদের উপযোগী করে লেখা এই বইটিতে বাঙলার সেই বহুবর্ণ ইতিহাসের একটা অংশ তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে পিতা আর পুত্রের কথোপকথনের মাধ্যমে। এখানে বাঙলা বলতে অবিভক্ত বৃহৎ বঙ্গকে বোঝানো হয়েছে। এই গ্রন্থ আগামী প্রজন্মের কাছে বাঙালীর ইতিহাসের এক নতুন দিক উন্মোচন করবে নিঃসন্দেহে।

প্রকাশক: বাতিঘর

মূল্য: 300 টাকা।

বইটা কিনতে হলে এখানে ক্লিক করুন।

 

Reviews

১. বুক রিভিউ: ‘‘সোনার বাঙলার রূপালী কথা’’
লেখক: পিনাকী ভট্টাচার্য।

পড়লাম পিনাকী ভট্টাচার্যের “সোনার বাঙলার রূপালী কথা”। এ যেন ইতিহাসের এক নির্মোহ পাঠ… খুব অল্প কথায়, গোছানো, তথ্যসমৃদ্ধ বাঙালির সংগ্রামমুখর ইতিহাসের এক সহজপাঠ।

”বাংলার মূল ইতিহাস এই মাটির মানুষদের ইতিহাস। ইতিহাসের নির্মাতা মানুষ; রাজা বা বাদশাহরা নয়। রাজা বা বাদশারা এই মাটির মানুষদের প্রাণশক্তিকে যখনই উন্মুক্ত করে দিতে পারেন তখনি জাতি এগিয়ে যায়।”

বাবা ছেলের কথোপকথনের মাধ্যমে উঠে এসেছে বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাস। ধন সম্পদ – প্রাচুর্যে বাংলা যে হাজার বছর ধরে কতটা সমৃদ্ধ ছিল তার ও নিখুঁত বর্ণনা যেখানে রয়েছে বইটিতে। বাংলার মসলিন, বাংলার বাণিজ্য, বাংলার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস,

বাঙালি জাতির সূচনা পর্ব – সেই আদি অস্ট্রালয়েড থেকে শুরু করে, চর্যাপদ, মহাস্থানগড় এর ঐতিহ্য ও পুরাকীর্তি, গুপ্তযুগ, পাল বংশ, সেন আমল, কৈবর্ত বিদ্রোহ, সোমপুর বিহার, লালমাই পাহাড়, বাংলায় মুসলিম আগমন, বাংলায় সুফী প্রভাব, মধ্যযুগে বাংলায় মুসলিম শাসন, একত্রে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য বাংলার ইতিহাস। শুধু তাই নয়, পলাশীর যুদ্ধ থেকে শুরু করে ইংরেজ আমলের ফকির সন্ন্যাসী বিদ্রোহ, সিপাহী বিদ্রোহ, নীল বিদ্রোহ, নদিয়ার বিশে ডাকাত এর বীরত্ব এবং পরিশেষে মাস্টারদা সূর্যসেনের চট্টগ্রামের অস্ত্রাগার লুণ্ঠন কী নেই এখানে?

বাংলার মানুষ যে বরাবরই এদেশের জমিদার -জোতদার, শোষক শ্রেণীর দ্বারা শোষিত ও অত্যাচারিত হয়েছে তার ও সুস্পষ্ট উচ্চারণ রয়েছে বইটিতে পক্ষপাতহীন ভাবে। চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের ফলে একশ্রেণী ধনীক জমিদার শ্রেণীর উদ্ভব হয় এবং অসহায় দরিদ্র মুসলিম কৃষকের নিপীড়নের কথাও লেখক নির্দ্বিধায় উল্লেখ করেছেন। বাংলায় বিভিন্ন সময় সংগঠিত বিদ্রোহের ও এক জীবন্ত চিত্র বইটির পরতে পরতে।

বইটির সীমাবদ্ধতা বলতে গেলে তেমন কিছুই চোখে পড়েনি, বরং স্বল্পপরিসরে বইটি অধিক সমৃদ্ধ। তবে মাস্টারদা সূর্যসেনের ইতিহাসটা পড়ার সময় মনে হচ্ছিলো খুব তাড়াহুড়া করে লেখা হয়েছে.আরও একটু বিস্তৃত, আরও একটু বর্ণনা হলে বোধহয় ভালো হতো।

বর্তমানে যত বই ই পড়িনা কেন প্রায় সবখানেই দেখা যায় এক ধরনের পক্ষপাতমূলক দৃষ্টিভঙ্গি; যেখানে লেখক তাঁর বিশ্বাস, চিন্তা চেতনা পাঠকের উপর আরোপ করতে চান। আর ইতিহাস রচনায় এ ব্যাপারটি যেন আরো প্রকট। কিন্তু এই বইটির ক্ষেত্রে লেখকের এমন দৃষ্টিভঙ্গি চোখে পড়েনি; যা বইটিকে করেছে স্বতন্ত্র, করেছে অনন্য। ইতিহাসের এমন নির্মোহ সংকলন পড়ে ইতিহাস পড়ার আগ্রহটা যেন আরও বেড়ে গেলো।

যারা অল্প সময়ের মধ্যে বাংলার ইতিহাসের পাঠ নিতে চান এবং এই হাজার বছরের ইতিহাস সম্পর্কে একটা মোটামুটি স্বচ্ছ ধারণা পেতে চান, তাঁরা বইটি পড়ে দেখতে পারেন।

বইটি পড়ার সময় মনেই হয়নি গদবাঁধা ইতিহাস পড়ছি। আরও ভালোভাবে জানার জন্য বইটি অবশ্যপাঠ্য।

- লুপা রহমান