Celebration of the death of a political criminal is not unnatural

Pro-fascist news portal Banglanews24 has published a column written by Mohammad A Arafat, under the headline of “Death of Mohammad Nasim and ‘exhilaration’ of the Rajakar progeny”. Mohammad Nasim is a former health minister and senior leader of the ruling Awami League party in Bangladesh.

Mohammad A Arafat claims that he is the chairman of the NGO Suchinta Foundation and a professor. However, his first identity is that he is a close from of Sajeeb Wazed Joy, Sheikh Hasina’s son. We don’t know where he teaches as a professor. But let me show his students and those who have appointed him as a teacher what he has written in the latest Banglanews24 column.

He has written:

“Do you want democracy in the country? You need people to establish a democracy. They are not people. They are animals. These animals can never be part of any democracy. Their hearts teem with hatred. They turn ‘ecstatic’ at the death of other people. Do you want to engage in a ‘game of democracy’ with those who rape women in the name of religion, murder children in the name of politics and throw grenades in the name of a political strategy? They are brutal. They will tear into it if they get a chance to be in a democracy. They do not deserve to be in a democracy. They are asking for a democracy, but they want to establish the rule of animals in the country.”

I doubt if Mohammad A Arafat received any formal education. I wonder how this stupid was employed as a teacher.

This man says that democracy should not be restored in Bangladesh. Such anti-democracy articles will backfire if they ever launch a struggle to restore democracy in Bangladesh.

They have drawn a red line across the middle of the society and divided it into two sides: Rajakar and Liberation War fighters. They call themselves Liberation War fighters. Quite strangely, all others opposing them are Rajakars, according to them.

Arafat said that democracy is not for all. In support of his theory his argument is: Most people in Bangladesh expressed joy at the death of former health minister Nasim.

This is true that people from across different classes were happy after they knew that he had been infected with the coronavirus. Their joy doubled when they knew that he had suffered a stroke. And, they expressed their joy openly when they knew that Nasim had died.

When Nasim was sick, his son urged people to pray for his recovery. Then many replied: “We were preparing to pray. But suddenly we heard a divine voice that said, ‘Your prayer is over; do return home.’” In 2018, the general election was massively rigged by Sheikh Hasina’s ruling party, of which Nasim was a senior leader. Hours before the polling started, in the dead of night, the ruling party cadres stuffed the ballot boxes across the country with the support of the state agencies, including the police. When the voters came to cast their votes in the morning, they were told: “Your voting is over; do return home.” In the same tune, people said, ‘Your prayer is over; do return home’, when Nasim’s son urged people to pray for his father.

Nasim was a political criminal. He was one of the architects who turned Bangladesh into a rogue nation.

There have been many discussions and controversies on the reactions of people following the deaths of such a criminal. Stupid Arafat perhaps never took note of them.

Prof (!!) Arafat should study how ecstatically the Americans reacted following the killing of Osama bin Laden. He should also study the discussions and debates that followed the killing of Laden there.

Religious leaders, politicians, professors of philosophy, sociologists and anthropologists- all took part in that debate or discussion.

The debates threw up some interesting points.

One views another as evil when he considers himself isolated or of a different entity from that person. When one believes his opponent is involved in criminal offences he just does not want to defeat him. He wants to finish him off completely because he believes if that opponent stays alive he would commit offences repeatedly.

Democratic institutions in the country have been dysfunctional as long as Awami League has been in power. Destruction of the nation will continue as long as this party will stay in power. So, people feel a sense of joy when they find the bricks of the edifice of the Awami rule crumble one by one.

American civil rights activist Clarence Darrow wrote: “All men have an emotion to kill; when they strongly dislike some one they involuntarily wish he was dead. I have never killed any one, but I have read some obituary notices with great satisfaction.”

Awami League is isolated from people today. People view the party as a criminal organisation and killer of the Bangladesh State.

It is easy to imagine why people in the country felt a sense of joy when they got the news of the death of Nasim. These people knew that Nasim was corrupt, amassed illegal wealth by stealing public funds and played the key role to ruin the health care system of the country. They also knew that he had siphoned off a huge amount of illegally acquired money abroad. After the outbreak of coronavirus, people witnessed the miserable conditions of the health systems. They cursed Nasim for that. We had cursed the Pakistani soldiers in the same manner.

When Khaleda Zia was in jail and she was seriously sick, Nasim said, she was pretending to be ill. When Sadek Hossain Khoka was beaten up by police and left bloodied, Nasim laughed at him and said he was smeared with the blood of a cow. Nasim is one of those Awami League leaders who shamelessly led the massive rigging exercise in favour of his party, during the 2018 general election. Nasim was one of the powerful pillars of Hasina’s fascist rule in the country. Nasim and his cohorts masterminded the operations in which their political opponents were framed in trumped-up cases, forcibly disappeared and got killed in so-called cross-fires. They also forced many opposition leaders to flee the country to make Bangladesh free from any political opposite ion. They have robbed the people’s right to vote. People have lost their citizenship rights. They kept all top facilities reserved for their own treatment after the outbreak of coronavirus. Ordinary citizens were deprived of minimum medical care. Coronavirus patients suffering from shortness of breath are dying painfully without getting oxygen.

Death of a political criminal is different from that of an ordinary person. Will you not rejoice at the death of Hitler, Mussolini ort Yahya Khan?

Political criminals commit crimes against nation, state and humanity. It’s natural to see the death of a political criminal being celebrated by people in a country.

People in Bangladesh celebrated the assassination of Sheikh Mujib in the same style. They rejoiced at the death of Mujib because he betrayed the spirits of the Liberation War, imposed a barbaric and authoritarian one-party rule and blocked all ways to remove him from power through peaceful democratic means.

Sorry, Professor Arafat, you cannot counter the accumulated hatred of people with an increased level of ruthlessness and the culture of devoid of democracy. You cannot scare anyone with your bloodshot eyes. People are rising. Your days are numbered.

Click here to read the original Facebook post

মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যু ও রাজাকার শাবকদের ‘উল্লাস’ শিরোনামে মোহাম্মদ এ আরাফাত ফ্যাসিস্টদের দালাল মিডিয়া বাংলানিউজ২৪ এ একটা কলাম ছাপিয়েছে। সে নিজেকে একজন অধ্যাপক এবং সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে দাবী করে।

অবশ্য তার মূল পরিচয় হচ্ছে, সে শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের বন্ধু। সে কোথায় অধ্যাপনা করে তা আমার জানা নেই। তবে কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে যারা তার ছাত্র ও যারা তাকে সেই ভাগ্যাহত ছাত্রদের পড়াতে দেন তাদের জন্য আমি উল্লেখিত শিরোনামের লেখার শেষ অংশটা তুলে দিচ্ছি। সেখানে সে লিখেছে:

“গণতন্ত্র চান? বন্য পশুদের দিয়ে পশুতন্ত্র হয়, গণতন্ত্র নয়। গণতন্ত্রের জন্য লাগে ‘গণ’, পশুদের দিয়ে গণতন্ত্র হয় না। অন্তরে যাদের এতো ঘৃণা, মানুষের মৃত্যুতে যারা ‘উল্লাস’ প্রকাশ করে। যারা ধর্মের নামে নারী ধর্ষণ করে, রাজনীতির নামে শিশু হত্যা করে, কৌশলের নামে গ্রেনেড ছুড়ে মারে তাদের দিয়ে আপনি ‘গণতন্ত্র’ ‘গণতন্ত্র’ খেলবেন? হবে না। এরা পাশবিক, এদেরকে গণতন্ত্র দিলে এরা গণতন্ত্রকে ছিড়ে খাবে। এরা গণতন্ত্রের যোগ্যই না। এরা গণতন্ত্র চায় মানুষের উপর পশুতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য।”

এই লোকের কোন ন্যূনতম শিক্ষা আছে? এমন মূর্খকে দিয়ে কে ছাত্র পড়ায়?

এই হলো সেই মানুষ, যারা মনে করে গণতন্ত্র সবার জন্য নয় !!! ভবিষ্যতে এরা যদি কোন দিন গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে, তখন এই লেখাগুলোই তাদের জন্য ব্যাকফায়ার করবে।

সমাজের মাঝ বরাবর এরা একটা লাল দাগ টেনে দিয়ে দুভাগ করে ফেলেছে: রাজাকার আর মুক্তিযোদ্ধা। যারা অপর, যারা তার বিরোধী তারা রাজাকার আর নিজেরা মুক্তিযোদ্ধা। বড়ই অবাক কাণ্ড।

সবার জন্য গণতন্ত্র নয়, এই তত্ত্বের সপক্ষে সে যুক্তি দেখিয়েছে যে বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মৃত্যুতে উল্লাস প্রকাশ করেছে।

বাংলাদেশের আপামর জনগণ নাসিমের রোগাক্রান্ত হবার সংবাদে আনন্দিত হয়েছিলো তা সত্য। নাসিমের স্ট্রোক করাতে সেই আনন্দ দ্বিগুণ হয়েছিলো। নাসিম মৃত্যুবরণ করাতে জনগণ প্রকাশ্য আনন্দ প্রকাশ করতে দ্বিধা করেনি।

এর আগে নাসিমের ছেলে তার বাবার আরোগ্যের জন্য দোয়া চেয়েছিলো। সেই সময়ে জনগণ বলেছে, “দোয়া তো করতে চেয়েছিলাম কিন্তু দোয়া করতে গেলে কোথায় থেকে গায়েবী আওয়াজ এলো, দোয়া করা হয়ে গেছে, বাসায় ফিরে যান।” ঠিক যেভাবে গত নির্বাচনে নাসিমের এলাকা সহ সব এলাকাতেই আগের রাতে ভোটের বাক্স প্রশাসন ও দলীয় গুণ্ডাদেরকে দিয়ে ভর্তি করে রেখে পরদিন নির্বাচনের আসল তারিখে ভোট দিতে গেলে সব ভোটারদেরই বলা হয়েছে, “ভোট দেয়া হয়ে গেছে, বাসায় ফিরে যান”। সেটার অনুকরণেই লোকজন বলেছে, “দোয়া করা হয়ে গেছে, বাসায় ফিরে যান”।

নাসিম ছিলো পলিটিক্যাল ক্রিমিন্যাল। বাংলাদেশকে বদমাশ রাষ্ট্রে রুপান্তর করার কারিগর।

এহেন ক্রিমিন্যালের মৃত্যুতে জনগনের কী প্রতিক্রিয়া হতে পারে সেটা নিয়ে আগেও নানা আলাপ ও বিতর্ক হয়েছে। আরাফাত নামের মূর্খটা হয়তো সেই আলাপগুলো কখনো দেখেনি।

অধ্যাপক(!!) আরাফাতকে আমি হাল আমলে আমেরিকায় ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যু সংবাদে সারা আমেরিকায় উল্লাসের পটভুমিতে চলা বিতর্কের আলাপগুলো দেখতে বলবো।

সেখানে ধর্মবিদ, রাজনীতিবিদ, দর্শনের অধ্যাপক, সমাজবিদ, নৃতাত্ত্বিক সবাই এই বিতর্কে অংশ নিয়েছিলেন।

সেই আলাপে দুটো বিষয় উঠে এসেছিলো। প্রথমত, মানুষ তখুনি আরেকজনকে শয়তান বা ইভিল বলে মনে করে যখন সে সেই

ইভিলের থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন এবং ভিন্ন সত্তা বলে মনে করে। আর দ্বিতীয়ত মানুষ তখুনি প্রতিপক্ষকে শুধু পরাজিত করেই ক্ষান্ত হয়না তাকে নিশ্চিহ্ন করেই নিজের বিজয়কে সম্পূর্ণ বলে মনে করে, যখন তার প্রতিপক্ষ ক্রিমিন্যাল অফেন্সের সাথে যুক্ত আছে বলে বিশ্বাস করে এবং মনে করে সেই প্রতিপক্ষ বেঁচে থাকলে সে আরো অপরাধ করতেই থাকবে।

আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রিয় সকল প্রতিষ্ঠান ধ্বংসের জন্য দায়ী। যত দিন গেছে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো ততো বেশী ধ্বংস হয়েছে। আওয়ামী লীগ যতোদিন ক্ষমতায় থাকবে, ততোদিন বাংলাদেশের ধ্বংস হওয়া চলতে থাকবে। তাই আওয়ামী শাসনের কড়ি বর্গা, নাট বল্টু কারোরই নিশ্চিহ্ন হবার সম্ভাবনা দেখা দিলে মানুষ উল্লসিত হয়।

সিভিল রাইটস অ্যাক্টিভিস্ট ক্ল্যারেন্স ড্যারো বলেছিলেন, “সকলেরই খুন করার মতো আবেগ থাকে; যখন কাউকে কেউ দৃঢভাবে অপছন্দ করে তখন তারা অনিচ্ছাকৃতভাবে কামনা করে যে সে মারা যাক। আমি কখনও কাউকে খুন করি নি, তবে আমি কিছু শোকবার্তা অত্যন্ত সন্তুষ্টির সাথে পড়েছি।”

আওয়ামী লীগ নিজেদেরকে এমন জায়গায় নিয়ে গেছে যে তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন আজ। আর আওয়ামী লীগকে মানুষ ক্রিমিন্যাল, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের হত্যাকারী বলে মনে করে।

দুঃখজনকাভাবে দেশবাসী মোহম্মদ নাসিমের মৃত্যুসংবাদ আনন্দের সাথে পাঠ করেছিলো। এটাই স্বাভাবিক। সারা দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থা লুটপাট করে সকল সম্পদ বিদেশে পাচার করে মোহম্মদ নাসিম দেশের মানুষকে যেই ভঙ্গুর স্বাস্থ্যব্যবস্থা উপহার দিয়েছিলেন। করোনাকালে সেই স্বাস্থ্যব্যবস্থার সামনে অসহায়ভাবে দাড়িয়ে থেকে নাসিমকে সে জনতা অভিশাপ দিয়েছে। আমরা একইভাবে অভিশাপ দিয়েছিলাম পাক বাহিনীকে।

খালেদা জিয়া জেলে থাকা অবস্থায় যখন তিনি মারাত্মকভাবে অসুস্থ তখন তিনি নাকি অসুস্থতার ভান করছিলেন এই কথা এবং সাদেক হোসেন খোকাকে পুলিশে মেরে মাথা ফাটিয়ে রক্তাক্ত করে দিলে সেটাকে গরুর রক্ত বলে উপহাস করেছিলো এই নাসিমই। এই নাসিমই নির্লজ্জভাবে রাতের বেলায় ব্যালট বাক্স ভরেছে। নাসিম ছিলো হাসিনার ফ্যাসিস্ট শাসনের অন্যতম খুঁটি। পলিটিক্যাল অপোনেন্টদের গুম-খুন করা, ক্রসফায়ারে ফেলা, তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া মামলা করে গ্রেফ্তার করা এসব নাসিমরাই করতো। রাজনৈতিক বিরোধীদের দেশান্তরে বাধ্য করে দেশকে এই নাসিমরাই বাংলাদেশকে বিরুদ্ধ রাজনীতি শূন্য করে দিয়েছে। মানুষের ভোটের অধিকার আর নাগরিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। নিজেদের জন্য সব সুবিধা রেখে সাধারণ মানুষকে এই করোনাকালে ন্যূনতম চিকিত্সা সেবা থেকে বঞ্চিত করেছে। অক্সিজেনের অভাবে করোনা রোগীরা তীব্র কষ্ট নিয়ে তড়পাতে তড়পাতে মারা যাচ্ছে।

পলিটিক্যাল ক্রিমিন্যালের মৃত্যুকে সাধারণ মানুষের মৃত্যুর সাথে মিলিয়ে ফেললে হবেনা। হিটলারের মৃত্যুতে কী আপনি উল্লাস করবেন না? মুসোলিনির? জল্লাদ ইয়াহিয়ার মৃত্যুতে?

পলিটিক্যাল ক্রিমিন্যালেরা অপরাধ করে জাতি, রাষ্ট্র, মানবতার বিরুদ্ধে। এই ধরণের মানুষের মৃত্যুতে সাধারণ মানুষের উল্লাস খুবই স্বাভাবিক ঘটনা।

শেখ মুজিবের দুঃখজনক মৃত্যুর পরে দেশের মানুষ এভাবেই উল্লাস করেছিলো। কারণ শেখ মুজিব এভাবেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে বর্বর ও নির্মম একদলীয় শাসন উপহার দিয়েছিলো এবং শান্তিপূর্ণভাবে তার অপসারণের সব পথ বন্ধ করে দিয়েছিলো।

সর‍্যি অধ্যাপক (!!) আরাফত, আরো নির্মমতা, আরো গণতন্ত্রহীনতা দিয়ে আপনি জনগণের এই সম্মিলিত পুঞ্জিভূত ঘৃণা মোকাবেলা করতে পারবেন না। রক্তচক্ষুকে ভয় পাওয়ার দিন শেষ, বাংলাদেশের মানুষ জাগছে, আপনাদের সময় শেষ হয়ে এসেছে।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter