August 8, 2020

The Awami League and Communist party activists in Bangladesh abuse Jamaat-e-Islami (JeI) by calling its members as supporters of Paskistan. JeI does not deny that they were against the birth of Bangladesh in 1971 and tried their best to stall the disintegration of Pakistan. But, this is also the fact that JeI had resisted the creation of Pakistan by breaking up India. However, after Pakistan was born, JeI remained loyal to the country.

Why will you not abuse Awami League, CPB and other Leftist parties and call them pro-Pakistan if JeI is a pro-Pakistan group in your view? I guess, my argument sounds strange to many. Let’s take a look at history

On August 25, 1969, Chhatro League and Chhatro Union issued a newspaper statement in which they condemned JeI for taking a stand against Pakistan. That statement was published in Dainik Ittefaq, a Bangla language newspaper. It’s interesting that they call JeI leaders Pakistani spies.

Look what they wrote then.

“Tofayel Ahmed, president of East Pakistan Chhatroleague and five student leaders from different student organisations have charged that Jamaat e Islami is involved in anti-Pakistan activities. In a joint statement last Saturday the students said, Jamaat e Islami continues to be against the existence of Pakistan,” the statement said.

The other five student leaders who issued the statement are East Pakistan Chhatroleague general secretary A S M Abdur Rob, East Pakistan Student Union (Matia Group) president Shamsuddoha, EPSU (Matia Group) general secretary Nurul Islam, East Pakistan Student Union (Menon Group) president Jamal Haidar and EPSU (Menon Group) secretary Mahbubullah.”

This statement was published six months after the mass uprising of 1969 had met with a successful end and Ayub Khan had resigned. Can Awami League and Communist leaders justify why they called JeI an anti-Pakistan group before? Can they also explain why at a later stage they began calling JeI a pro-Pakistan organisation?

Awami League and Communist leaders and supporters say that the freedom movement in East Pakistan started with the Language Movement in 1948.

Let’s see what Awami League leader Tofayel Ahmed, who was in support of united Pakistan in 1969, said last year.

Tofayel Ahmed said: “Sheikh Mujib sowed the seed of greater freedom movement by founding Awami League on June 23, 1949 and launching great Language Movement.”

(Jugantor, 15 AUG 2019)

In 1975, Shiekh Mujib said: “The Language Movement in the long run led to the winning of Bangladesh’s independence and sovereignty.”

(Dainik Songbad, 21 FEB 1975)

After returning to Bangladesh, following the country’s independence, Sheikh Mujib said in a radio speech: “The Language Movement of 1952 was not just a movement for the language. It was also a struggle for cultural rights and that to live as human beings. That was the beginning of the preparation for the final struggle. For the people of Bangladesh that was a movement for their rights, and also a movement for independence.”

(Dainik Bangla, 15 FEB 1972)

However, Awami sycophants say, Sheikh Mujib dreamt of the independence of Bangladesh.

“In the academic year of 1945-46, Bangabondhu Sheikh Mujibur Rahman used to stay at Baker Hostel, while he was a student of Islamia College, which is now known as Maulana Azad College. Room No 24, on the second floor, was allotted to him. It is believed, he started dreaming of the independence of Bangladesh, while he stayed in that room. In 1971, he materialised his dream.”

(Samoy News TV, 17 MAR 2020)

If the 1969 joint statement of Chhatroleague, pro-Russian EPSU and pro-Chinese EPSU came from an honest political standpoint, whatever they wrote as the history of the Liberation War and the freedom struggle post-1971 is completely untrue.

Now this is a relevant question, why those who were staunch supporters of a united Pakistan in 1969, moved in the opposite direction and took part in the Liberation War. We all have to accept, the claim that the seeds of independence of Bangladesh were sown in 1952 is indeed bogus.

Click here to read the original Facebook post

বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ ও বামেরা জামায়াতে ইসলামীকে পাকিস্তানপন্থী বলে গালি দেয়। যদিও জামায়াত এটা অস্বীকার করেনা যে তারা ১৯৭১ এ স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের বিরোধী ছিলো এবং যতভাবে সম্ভব পাকিস্তানের ভেঙে যাওয়াকে ঠেকানোর জন্য কাজ করেছে। তবে জামাতে ইসলামীর নির্মোহভাবে পর্যালোচনা করলে দেখবেন তারা ভারত ভেঙে পাকিস্তান সৃষ্টিরও বিরোধিতা করেছিলো। কিন্তু পাকিস্তান সৃষ্টির পরে তারা পাকিস্তান রাষ্ট্রকে মেনে নিয়ে রাষ্ট্রের প্রতি অনুগত থেকেছিলো।

জামায়াতকে পাকিস্তানের অখণ্ডতা রক্ষার জন্য যদি পাকিস্তানপন্থী বলে গালি দেয়া যায় তবে আওয়ামী লীগ সিপিবি ও বাংলাদেশের বেশীরভাগ বামেদের পূর্বসূরীদের পাকিস্তানের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য মরিয়া চেষ্টার জন্য কেন তাদেরকে পাকিস্তানপন্থী বলে গালি দেয়া যাবেনা। আমার এই কথাটা শুনে অনেকে নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন। আসেন আমরা একটু ইতিহাস দেখি।

১৯৬৯ সালের ২৫ আগস্ট ছাত্র লীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন জামায়াতকেকে পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে পাকিস্তান বিরোধী বলে গালি দিয়েছিলো। বিবৃতিটি দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত হয়েছিলো। কৌতুকপ্রদ হচ্ছে, যেই জামায়াতকে তারা পাকিস্তানের শত্রু আখ্যা দিয়েছিলো সেই একই জামায়াতকে তারা আজ পাকিস্তানের চর বলে। দেখুন সেদিন তারা কী লিখেছিলো।

“পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল আহমদ ও বিভিন্ন ছাত্র সংস্থার পাঁচজন ছাত্র নেতা জামাতে ইসলামীদের বিরুদ্ধে পাকিস্তান বিরোধী কার্য-কলাপের অভিযোগ করেন।

গত শনিবার রাত্রে এক যুক্ত বিবৃতিতে ছাত্রনেতৃবৃন্দ বলেন, জামাতে ইসলামীরা এখনও পাকিস্তানের অস্তিত্বেরই বিরোধী।

বিবৃতিতে অপর ৫ জন ছাত্রনেতা হইতেছেন: পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আঃ শঃ মঃ আবদুর রব, পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের (মতিয়াগ্রুপ) সভাপতি শামসুদ্দোহা ও সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম এবং ছাত্র ইউনিয়নের (মেননগ্রুপ) সভাপতি জামাল হায়দার ও সম্পাদক মাহবুব উল্লাহ।”

এই বিবৃতি প্রকাশিত হয়েছিলো ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থান সফল হয়ে আইউব খানের পদত্যাগের ছয় মাস পরে। জামায়াতে ইসলামীকে পাকিস্তান বিরোধী কেন বলেছিল তারা, আজ আওয়ামী ও বামদেরকে তার কৈফিয়ত দিতে হবে। আবার এটাও তাদের জাস্টিফাই করতে হবে যে কেন পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ ও বামদের নির্মিত ইতিহাসে জামায়াতকে পাকিস্তানপন্থী বলা হয়।

আওয়ামী লীগ আর বামেরা বলে ৪৮ এ ভাষার দাবীর আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই পূর্ব পাকিস্তানে স্বাধীনতার আন্দোলনের সূচনা হয়। দেখুন, ৬৯ এ পাকিস্তানের অখণ্ডতা রক্ষার জন্য পেরেশান হওয়া তোফায়েল আহমেদ ২০১৯ কী বলেছেন?

তোফায়েল আহমেদ গত বছর বলেছেন, “৪৯-এর ২৩ জুন আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করে মহান ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে মহত্তর স্বাধীনতার বীজ রোপণ করেন শেখ মুজিব”

সূত্রঃ যুগান্তর, ১৫ আগস্ট ২০১৯

শেখ মুজিবুর রহমান নিজেই বলেছেন, “বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব ভাষা-আন্দোলনেরই সুদুর প্রসারী ফলশ্রুতি”

সূত্রঃ দৈনিক সংবাদ, ২১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭৫

স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে শেখ মুজিব বেতার ভাষণে বলেছিলেন, ‘১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন কেবল ভাষার জন্য আন্দোলন ছিল না, বরঞ্চ তা ছিল সাংস্কৃতিক স্বাধিকার আর মানুষের মতো বাঁচার অধিকারের সংগ্রাম। সেদিন থেকেই শুরু হয়েছিল চরম সংগ্রামের প্রস্তুতি। এই আন্দোলন ছিল বাংলাদেশের মানুষের স্বাধিকারের আন্দোলন, স্বাধীনতার আন্দোলন।’

সূত্রঃ দৈনিক বাংলা, ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭২

আওয়ামী স্তাবকেরা অবশ্য আরো আগিয়ে বলেন, শেখ মুজিব কোলকাতায় থাকাকালেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছিলেন। দেখুন,

১৯৪৫-৪৬ শিক্ষাবর্ষে তৎকালীন ইসলামিয়া বর্তমানে মাওলানা আজাদ কলেজে পড়াশোনা করার সময় বেকার হোস্টেলেই থাকতেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার জন্য বরাদ্দ ছিল তিনতলার ২৪ নম্বর কক্ষটি। মনে করা হয়, বঙ্গবন্ধু দু’বছর এই কক্ষ থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছিলেন। যা তিনি ১৯৭১ সালে বাস্তবায়ন করেন।”

সূত্রঃ সময় নিউজ টিভি ১৭ মার্চ ২০২০

ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়নের রুশপন্থী ও চিনপন্থী উভয় গ্রুপের ১৯৬৯ এর ২৫ আগস্টের যৌথবিবৃতি যদি তাদের সৎ রাজনৈতিক অবস্থান হয় তাহলে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার সংগ্রাম নিয়ে ১৯৭১ এর পরে সকল নির্মিত ইতিহাস মিথ্যা। এখন একটা প্রশ্ন সঙ্গত কারণেই সামনে চলে আসে যে ১৯৬৯ এর আগষ্ট মাসে যারা পাকিস্তান রাষ্ট্রের অখণ্ডতা রক্ষায় পেরেশান ছিলেন তারা কেন তার ঠিক এক থেকে দেড় বছরের মাথায় পাকিস্তান রাষ্ট্র ভেঙে বাংলাদেশ সৃষ্টির জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছিলো? তাহলে এটা তো স্বীকার করতেই হবে, ১৯৫২ থেকে স্বাধীনতার বীজ বপন বা স্বপ্ন দেখার কথা মিথ্যা।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Add comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *