Man faces acid attacks for seeking justice after wife’s rape by ruling party cadres

Man faces acid attacks for seeking justice after wife's rape by ruling party cadres
Pinaki Bhattacharya

We all know about the case of the housewife who was gang-raped at Subarnachar of Noakhali by some ruling Awami League (AL) party workers for voting in favour of the opposition party. Her husband Nasir took part in a demonstration forming a human chain and demanded justice in the case. Now, he has been wounded in an acid attack.

The current AL-led government came to power following the December 30 farcical general election which was massively rigged by the party. Using support from the state agencies, the AL workers stuffed the ballot boxes with bogus votes in support of their party the previous night and kept the voters away from the voting centres on the day of polling. Yet, some voters managed to cast their votes in support of the opposition alliance of Jatiya Oikyo Front. Nasir’s wife was one among those who voted in support of the opposition alliance. It enraged the AL cadres. So, they tied up Nasir and his children and gang-raped his wife.

The case of that rape just after the general election created an outrage across the country. To save the face of the ruling party, national human rights commission- which is controlled by the government- issued a statement which said that there was no evidence that the incident of rape was related to the general election.

The main culprit in the case was granted bail by the court soon. We do not have any update on the proceedings of the case. But, the victim’s husband has now been completely burnt in an acid attack, this media report says. This is the way the citizens of Bangladesh are facing oppression under this fascist government which took to power illegally, by using force.

All state-owned institutions have been destroyed. Goons and mafia gangs are running the country. And, the entire nation is in ruins.

Click here to read the original Facebook post

ধানের শীষে ভোট দেয়ায় ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন নোয়াখালীর সুবর্ণচরের এক গৃহবধূ। আলোচিত ওই ঘটনার বিচার চাওয়ায় এবার অ্যাসিডে ঝলসে দেয়া হয়েছে সেই নারীর স্বামী নাসিরকে।

গত ৩০ ডিসেম্বর প্রহসনের সংসদ নির্বাচনের সময়ে সারা দেশে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ভোট কেন্দ্র থেকে দূরে রেখে রাতের বেলায় প্রশাসনের সহায়তায় ব্যালট বাক্স ভরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এতো বাধা সত্ব্বেও কেউ কেউ ভোট কেন্দ্রে গিয়ে বিরোধী ঐক্য জোটকে ভোট দিয়ে আসে। এমনই এক ঘটনায় নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়নের এক গ্রামে বিরোধী দলের প্রতীক ধানের শীষে ভোট দেয়ার “অপরাধে” স্বামী-সন্তানকে বেঁধে রেখে এক নারীকে মারধর ও গণধর্ষণ করে আওয়ামী লীগের ক্যাডারেরা।

এই নিয়ে সেইসময় সারা দেশে ব্যাপক সমালোচনা হয়। ক্ষমতাসীন দলকে বাচাতে তাদের আজ্ঞাবহ জাতীয় মানবাধিকার কমিশন তড়িঘড়ি করে এক প্রতিবেদন দেয় যেখানে তারা দাবী করে যে ঘটনাটির সঙ্গে নির্বাচনের কোনো সম্পর্ক থাকার প্রমাণ মেলেনি।

প্রধান অভিযুক্ত দ্রুতই নিম্ন আদালত থেকে জামিন পায়। এই ঘটনার বিচারের কোন আপডেইট জানা না গেলেও বিচার চাওয়ায় ভিকটিমের স্বামীকে এখন অ্যাসিডে ঝলসে দেয়া হলো। এটাই হচ্ছে ক্ষমতা জবরদখলকারী আওয়ামী ফ্যাসিবাদের জামানায় বাংলাদেশের জনগণের অবস্থা।

সমস্ত রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে সারা দেশে তারা মাফিয়া আর গুণ্ডাতন্ত্র কায়েম করেছে। আর এই গুণ্ডাতন্ত্র পুরো রাষ্ট্রকেই খেয়ে ফেলেছে।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Print Friendly, PDF & Email
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Comment