June 7, 2020

The outbreak of coronavirus in Bangladesh has exposed the cracks in the health care system in Bangladesh. Continually decreasing allocation for the health sector, growing corruption and mismanagement have left the system in a crumbling condition and it lacks the ability to cope up with the crisis triggered by COVID-19. There are not enough test kits for the virus. The health workers do not have sufficient PPEs. There are not enough ICUs. Health workers in the hospital are not being supplied food properly; they are even facing the accommodation crisis. There is not enough supply of oxygen for the patients.

The ruling party of Awami League never bothered to pay attention to the issue of the public health care system in Bangladesh. Most leaders of the party and their near and dear ones rarely travel abroad for medical treatments. Even the middle and elite class mostly sought medical care outside the country. So, they failed to notice that the health care system of the country had been destroyed to the core. The President, PM and other ministers seek medical treatment in hospitals of Bangladesh only in the case of serious emergencies. However, the constitution of the country does not allow any State official to seek medical treatment abroad, using state funds.

Now, after the outbreak of COVID-19, the ruling and elite classes in the country are not in a position to travel abroad for medical treatment. In this situation, the crumbling health care system of the country has upset them. They have not ensured that ordinary have access to regular medical care. But, they are shamelessly using the limited allocation for the public health care system to build a medical facility for exclusive use by the elite.

Prof Dr Abu Yousuf Fakir, additional director (health education) of the health department, said that for the VIPs a separate medical facility is being set up. Sheikh Russel Gastro Liver Institute & Hospital is being readied as a dedicated facility for the treatment of COVID-19 cases. There is plan to use Apollo Hospital in Dhaka as well for the treatment of the VIPs. Ministers and high level government officials will get medical treatment in these hospitals.

“ICU facilities may be provided to the VIPs at the Gastro Liver hospital. We are also in talks with Apollo Hospital to use its facility. However Gastro Liver Hospital will be used for the VIPs for now,” Dr Fakir said.

Several sources from Sheikh Russel Gastro Liver Institute & Hospital reported to the media that the hospital would be used for people viewed as VIPs by the State and dignitaries from the foreign embassies in the country. Representatives from some embassies visited the hospital to see how it was being readied. Health ministry of Bangladesh has informed the hospital, with ICU facilities, has been set up to provide medical treatment to the VIPs.

The wealth of the people is not being used for the benefit of the people. The elite class is misappropriating public money in as many ways as possible and this has no parallel in the world. The rulers are looting the wealth of the people. The elite class, tied to the rulers’ apron strings, is also sharing the loots in their selfish interest, shamelessly depriving the ordinary people.

Click here to read the original Facebook post

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সব ফাটলগুলো উন্মোচিত হয়ে গেছে। বছরের পর বছর স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ কমানো, সীমাহীন দুর্নীতি আর অব্যস্থাপনার ফলে করোনা ভাইরাস মোকাবেলার সময়ে তা একেবারেই ভেঙ্গে পড়েছে। করোনা পরীক্ষার জন্য পর্যাপ্ত কিট নেই, চিকিত্সকদের সুরক্ষা সামগ্রী নেই, আইসিইউ বেড নেই, হাসপাতালের কর্মীদের খাদ্য নেই, থাকার জায়গা নেই, এমনকি রোগীদের জন্য অক্সিজেন লাইন নেই।

শাসক দল কখনোই বাংলাদেশের জনগনের স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবে নাই। তারা কখনোই বাংলাদেশে নিজের ও পরিবারে চিকিতসা করায়নি। এমনকি বাংলাদেশের মধ্যবিত্ত ও এলিটেরাও দেশের বাইরেই নিজেদের ও পরিবারের চিকিৎসা করাতো। সেকারনেই তারা এটা লক্ষ্য করেনি যে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভিতর থেকেই ধ্বংস হয়ে গেছে। বাংলাদেশের রাস্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীরা কখনোই একান্ত বাধ্য ও অতি জরুরী স্বাস্থ্য সমস্যা না হলে বাংলাদেশে চিকিত্সা করান না। যদিও বাংলাদেশের সংবিধান অনুসারে রাষ্ট্রিয় কোষাগারের অর্থ দিয়ে রাষ্ট্রীয় পদাধিকারী দেশের বাইরে চিকিতসা নিতে পারেন না।

করোনাকালীন সময়ে যখন বিদেশে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার সুযোগ বন্ধ তখন বাংলাদেশের শাসক ও এলিট শ্রেনী হঠাত করেই বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বেহাল অবস্থা দেখে বিচলিত হয়ে পড়লো। দেশের মানুষের চিকিতসা সেবা নিশ্চিত না করে স্বাস্থ্যখাতে রাষ্ট্রিয় সীমিত বরাদ্দ নির্লজ্জের মতো এলিটদের জন্য আলাদা চিকিৎসা ব্যবস্থা গড়ে তোলার কাজে ব্যয় করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (স্বাস্থ্য শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. আবু ইউসুফ ফকির বলেছেন, “বাংলাদেশে ভিআইপিদের জন্য আলাদা চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এর মধ্যে কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য ডেডিকেটেড শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালকে প্রস্তুত করা হচ্ছে। এছাড়া রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালেও চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়ে চিন্তাভাবনা চলছে। এ সমস্ত জায়গায় মন্ত্রী, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন ভিআইপিদের চিকিৎসা দেয়া হবে।

ভিআইপিদের যাদের ক্ষেত্রে আইসিইউ দরকার হবে, তাদের গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হতে পারে। অ্যাপোলো হাসপাতালেও আমরা এখন কথাবার্তা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালেই আপাতত ভিআইপিদের চিকিৎসা দেওয়া হবে।“

শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের একাধিক সূত্র সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, এই হাসপাতালে মূলত রাষ্ট্রীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, বিভিন্ন দূতাবাসের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের চিকিৎসা দেওয়া হবে। এ কারণে অনেকেই এর মধ্যে হাসপাতাল ঘুরে গেছেন। কিছু দেশের দূতাবাসের কর্মকর্তারাও ঘুরে গেছেন। মন্ত্রণালয় থেকেও জানানো হয়েছে, এখানে ভিআইপিদের চিকিৎসা দেওয়া হবে বলে। সেভাবে আইসিইউও প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

জনগনের সম্পদ জনগণের জন্য ব্যয় না করে একান্ত নিজেদের প্রয়োজনে আত্মসাৎ করে নেয়ার এমন নজির পৃথিবীর কোন দেশে আছে কিনা জানা নেই। কিন্তু বাংলাদেশের অপদার্থ, লুটেরা শাসক ও তাদের বশংবদ এলিটেরা এভাবেই দেশের মানুষের সম্পদকে তাদের জীবন রক্ষার জন্য লুট করে নিয়ে যেতে একটুও গ্লানিতে ভোগেনা।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Add comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *