Ruling party MP reveals how he stopped a senior police officer from killing someone

Featured Video Play Icon
Pinaki Bhattacharya

Please take a look at this video clip from 10 min 30 sec to 11 min 8 sec and listen to what Nazmul Hassan Papon- who was fraudulently elected as an MP through the massively rigged general election in December and happens to be the son of the former Bangladesh president Jillur Rahman- is saying. He is an important leader of the ruling Awami League party.

“I need to act against a Superintendent of Police by calling him up at 3 o’clock at night after someone reports that his brother has been beaten up by that senior police officer. (After I receive a complaint) that police officers have picked up a cricketer with a plan to kill him, I need to intervene and stop them by making phone calls from a foreign country.”

I’m sure this statement has helped you figure out the horrific law and order situation in our country. He says, he knows that policemen are abducting a cricketer to kill him and he stops them. It is also clear from his statement that an SP, who is a very senior police officer, beat up people in a serious act of violation of human rights. This statement also reveals that a ruling party MP is aware of the horrible law and order situation in the country and he admits it.

This statement from a ruling party leader also makes it conspicuous that the state of Bangladesh has turned into a mafiadom. In no civilised nation in the world will you find the rule of anarchy taking such horrifying shape.

In the case of an incident admitted by the BCB president now we know that he saved a cricketer from being another victim of extrajudicial killing by police. There are many other people for whom there is none to intervene the way the BCB president did in the case of the cricketer, and they need to quietly bear with all sorts of persecutions as meted out by the state agencies. Police may shoot them dead secretly, before branding them terrorists, rapists or illicit drug dealers. Or, after they are shot dead, their belly would be slit open and stuffed with stones, before they are drowned in the rivers.

However, this government, which has also been looting the country keeps on peddling stories of so-called developments.

Click here to read the original Facebook post

এই ভিডিওর ১০ মিনিট ৩০ সেকেন্ড থেকে ১১ মিনিট ৮ সেকেন্ড পর্যন্ত দেখুন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন যিনি বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের ছেলে ও গত নৈশ ভোটের এমপি এখানে কী বক্তব্য রেখেছেন শুনুন।

তিনি আওয়ামী লীগের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা। বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ধর্মঘট প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি ক্রিকেটারদের জন্য ব্যক্তিগতভাবে কী কী করেছেন সেটা জানানোর জন্য সাংবাদিকদের বলছেনঃ
“কারও ভাইকে কোন এসপি মেরেছে, রাত তিনটায় ফোন করে এসপির বিরুদ্ধে আমাকে ব্যবস্থা নিতে হয়।
এক প্লেয়ারকে পুলিশ ধরে নিয়ে যাচ্ছে, মেরে ফেলবে বলে। বিদেশ থেকে ফোন করে আমাকে থামাতে হয়।”

ভেবে দেখুন কী ভয়ানক কথা। এক ক্রিকেটারকে পুলিশ ধরে নিয়ে যাচ্ছে মেরে ফেলার জন্য, তিনি সেটা জানেন যে মেরে ফেলার জন্য নিয়ে যাচ্ছে, যেটা তিনি থামান। এসপি যিনি পুলিশের অতি গুরুত্বপূর্ণ উর্ধতন অফিসার তিনি কাউকে পিটিয়ে মারেন। এই হচ্ছে বাংলাদেশের অবস্থা। এবং দেশে এই অবস্থা যে চলছে সেটা একজন এমপি জানেন ও স্বীকার করেন।

বাংলাদশ রাষ্ট্রটা যে পুলিশি মাফিয়াতন্ত্রে পরিণত হয়েছে সেটা এই বক্তব্যে পরিস্কার। পৃথিবীর কোন সভ্য দেশে এর নজির নাই।

যাদের ফোন করার জন্য বিসিবি সভাপতি বা অন্য আওয়ামী নেতা নেই, তাদের এই জুলুম সহ্য করা ছাড়া কোন উপায় নাই। পুলিশ তাদের ধরে নিয়ে গিয়ে মেরে ফেলে আর তাকে হয় ধর্ষক অথবা মাদক ব্যবসায়ী বানায়। অথবা, পেট চিরে পায়ে পাথর বেঁধে মৃতদেহ নদীতে ডুবিয়ে দেয়। হতভাগ্যের শরীর মাছের খাদ্য হয়। আর বাংলাদেশের লুটেরা শাসকেরা উন্নয়নের গল্প শোনায়।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Print Friendly, PDF & Email
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Comment