Under the open sky, sick people lie on the pavement at night, waiting for COVID-19 test

DESH ROOPANTAR, a Bengali language newspaper has published this photo which was shot in front of a medical university in Dhaka at 5.15 am, on May 16. The men found sleeping on the pavement were some patients who, since the previous night, were on a queue to be tested for COVID-19. They were certainly sick and showed symptoms like fever and cough. Yet, they were forced to sleep under the open sky, on newspapers and cloth, to get tested.

They have to go through such troubles because they are carrying the symptoms of coronavirus. Every day hundreds of thousands of people, showing symptoms of COVID-19 call up a hotline urgently seeking to be tested for the infection. But, the facilities in Bangladesh cannot conduct more than 8,000 tests a day. So, many patients cannot be tested before they are dead.

Hospitals in Bangladesh, where coronavirus patients are not treated, are refusing to admit patients if they have fever and do not have their COVID-19 test reports. So, many patients with fever and showing symptoms of coronavirus are being forced to stay without treatment. Many coronavirus patients in critical condition are not getting access to ventilators in the COVID-19 treatment hospitals, because there are not enough ventilators.

The Hasina-led government is clearly failing to manage the crisis and it has led to an increase in the sufferings of the people. But, her party workers have been campaigning that the government is managing the coronavirus situation wonderfully. They are even saying that the government’s successful fight against COVID-19 in Bangladesh is being praised across the Western world. I hope, after taking a look at the following photo and reading this post people in the West will praise Hasina even more loudly.

Click here to read the original Facebook post

এই ছবিটি “দেশ রূপান্তর” পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে ১৬ মে র সকালে ঢাকার একটি মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ভোর সোয়া পাঁচটার ছবি। করোনা রোগের পরীক্ষা করার জন্য আগের দিন থেকে অপেক্ষা করা রোগীরা সারারাত খোলা আকাশের নীচে এভাবেই ঘুমিয়ে থেকেছে। কেউ খবরের কাগজ বিছিয়ে, কেউ গায়ের চাদর বিছিয়ে।

এদের কোন উপায় নেই কারণ এদের সবারই করোনা ভাইরাসের মতো উপসর্গ আছে। করোনা রোগের উপসর্গ নিয়ে প্রতিদিন কয়েক লাখ মানুষ সরকারী হটলাইনে ফোন করে কিন্তু একদিনে সর্বোচ্চ আট হাজার টেস্ট করাতে পারে বাংলাদেশের সরকার। ফলে অনেক করোনা রোগীই মৃত্যুর আগে করোনা টেস্ট করাতেই পারেনা।

গায়ে জ্বর থাকলে কোন রোগীকেই বাংলাদেশের সরকারী বা বেসরকারী হাসপাতাল ভর্তি নিচ্ছেনা যদি না তাদের করোনার টেস্ট করা থাকে। ফলে গায়ে জ্বর নিয়ে বা করোনার উপসর্গ নিয়ে সমস্ত রোগীকেই বিনা কার্যত বিনা চিকিত্সায় থাকতে হচ্ছে। করোনা চিকিত্সার হাসপাতালে ভর্তি হয়েও ভেন্টিলেটরের স্বল্পতায় প্রয়োজনে ভেন্টিলেটর পাচ্ছেন না মরনাপন্ন রোগীরা।

দুর্গত মানুষকে নিজেদের অযোগ্যতায় এমন দুরবস্থায় ফেলেও হাসিনা সরকারের মন্ত্রী দলীয় কর্মীরা প্রচার করেই চলেছে যে তারা করোনা মোকাবেলায় খুবই সফল। তাদের করোনা মোকাবেলায় সফলতা নাকি পশ্চিমা বিশ্ব প্রসংসিত হচ্ছে, তারা বলছে। আশা করি এই স্ট্যটাস পড়ে আর অসহায় রোগাক্রান্তদের খোলা আকাশের নীচে রাস্তায় শুয়ে অপেক্ষায় থাকার এই ছবি দেখে পশ্চিমা বিশ্বের মানুষেরা হাসিনাকে আরো একটু বেশী প্রশংসা করবেন।

লেখাটির ফেইসবুক ভার্সন পড়তে চাইলে এইখানে ক্লিক করুন

Share

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Feeling social? comment with facebook here!

Subscribe to
Newsletter